রাজশাহীতে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত


অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২৩ । ৭:৫৩ অপরাহ্ণ
রাজশাহীতে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

মোঃ মানিক হোসেন, রাজশাহী বিভাগীয় প্রতিনিধি :

রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী পৌরসভার একটি রাস্তা সংস্কারের দাবিতে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যায় শ্যামপুরের নজিরের মোড়ে এই মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পবা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য হযরত আলী। অনুষ্ঠানে উপস্থাপনা করেন পবা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন।

মতবিনিময় সভায় দেওয়ানপাড়া থেকে শ্যামপুর (বালুরঘাট) ফুলতলা পর্যন্ত রাস্তা সংস্কারের দাবী এবং অনেকে নতুন করে রাস্তা নির্মানের দাবি তুলে ধরেন বক্তারা।

এসময় উপস্থিত থেকে বক্তব্য দেন, রাজশাহী জেলা শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক আজাদ আলী, কাটাখালি পৌরসভা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তাদির আলী, কাটাখালি পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান মনি, আদর্শ ডিগ্রী কলেজের অধ্যাপক সিরাজুল হক, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রধান কর্মকর্তা মঞ্জুরুল আলম, ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহিম, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ ইউনুস আলী, সহ সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, সমাজসেবক মাসুদ রানা, ৭,৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের মহিলা সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মোসাঃ আয়েশা আকতার, মোঃ এনামুল হকসহ পৌরবাসী।

স্থানীয়রা রাস্তা সম্পর্কে জানান, দেওয়ানপাড়া থেকে শ্যামপুর ফুলতলা পর যাবার রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে খানা-খন্দকে ভরা। ভারী যানবাহন চলাচল ও দীর্ঘদিন রাস্তাটির সংস্কার না হওয়ায় রাস্তাটি মানুষের চলাচলের জন্য অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। সামান্য বৃষ্টি হলেই ভোগান্তি আরও বেড়ে যায়। বিশেষ করে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা যাতায়াতে চরম ঝুকির সম্মুখীন হতে হয়। বিভিন্ন স্থানে রাস্তাটি দেবে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। ফলে ভাঙ্গাচোরা রাস্তাটি দিয়ে চলতে গিয়ে অহরহ ঘটছে দুর্ঘটনা। এর পরেও যেন টনক লড়ছে না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের। ১৯৫৭ রাস্তাটি নির্মাণ করা হলেও একটি এম্বুল্যান্স যাওয়া আসার মত কোন অবস্থা নেই।

কথা বলার সুযোগে আমিনুল নামের একজন শিক্ষক বলেন, শ্যামপুরের রাস্তার দুর্দশা খুবই বেদনাদায়ক। অনেক সময় দেকা গেছে মানুষেরা যাওয়ার পথে রাস্তায় কাঁদা মাটিতে পড়ে গিয়ে, দুর্ঘটনা ঘটায় বাড়িতে ফিরে আসতে হয়েছে। নাগরিক হিসেবে ট্যাক্স ও ভ্যাট দিচ্ছি, তাই রাস্তার সংস্কারের দাবি জানাচ্ছি। তাছাড়া কোন যানবাহন চলাচল করতে দেয়া যাবে না।

আব্দুল মুক্তাদির নামের একজন বলেন, আপনারা কেউ বিবেক বেচে দেবেন না। সকলে একতাবদ্ধ হয়ে গণস্বাক্ষর দেন স্মারক লিপি প্রধানমন্ত্রী বরাবর পৌঁছে দেব ইনশাআল্লাহ।

নজরুল ইসলাম এবং ৭নং ওয়ার্ডের সহসভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, ৩০ বছর ধরে বালুর ঘাটের বালুর ব্যবসা চলছে। আজ কেন বালুরঘাটের কেন দুর্নাম হবে? কেন মানুষ বলবে পৌরসভার লোকেরা বালুর ঘাটের টাকা খেয়ে চুপ করে থাকছে? রাস্তা না হওয়া পর্যন্ত বালুর ঘাটের নতুন কোন টেন্ডার হবে না।

বক্তব্যে ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি সাজ্জাদ হোসেন বলেন, ভারী যানবাহন চলাচলে সমস্যা সৃষ্টি হলেও কিছু বলার নেই। জীবিকা নির্বাহে বালুরঘাট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। কেননা, এখানকার বালু রাজশাহীর সব জায়গায় বালু সরবরাহ করা হয়। বালুরঘাট আরও সচল করতে আমাদের রাস্তা টেকসই ও মজবুত করতে হবে। যোগাযোগ ব্যবস্থায় এবং সংসারের চাকা সচল করতে আমাদের এই রাস্তা সংস্কার প্রয়োজন। রাস্তা সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত নেতাকর্মী ও প্রতিনিধিদের বলতে চাই, রাস্তা সংস্কার না হওয়া পর্যন্ত বালুরঘাট যেন টেন্ডার দেয়া না হয়। টেন্ডার দেয়া হলে শ্যামপুর এলাকাবাসী জবাব দেবে।

৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবদুল মজিদ বলেন, ১৩ হাজার লোকসংখ্যা শ্যামপুরে। যতদিন না রাস্তা সংস্কার হবে ততদিন ধর্মঘট করা হবে। আমরা কেন পিছিয়ে পড়ব। আমরা শুধু রাজনীতি নিয়ে পড়ে আছি। না কেউ টাকা খেয়ে বসে থাকবেন না। যারা রাজনীতি করছি তারা একবার ভাবুন চারচাকার রাস্তার জন্য হলেও রাস্তা সংস্কারে এগিয়ে আসুন। শরীরে একবিন্দু রক্ত থাকা পর্যন্ত পিছপা হব না। পুলিশের গুলি লাগলেও বুক পেতে দেব না। আজ কোন দল বা রাজনীতির বিষয় নয়, বিষয় জনস্বার্থে।

উক্ত মতবিনিময় সভায় দল মত নির্বিশেষে এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন। সর্বশেষে সকলকে একতাবদ্ধ ও সুপরিকল্পিতভাবে সামনের কর্মসূচি নেয়া ও বাস্তনায়নের মাধ্যমে রাস্তা সংস্কার সফল হোক প্রত্যাশা করেন বক্তারা।

পুরোনো সংখ্যা

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮  
%d bloggers like this: